নীলাকাশ টুডেঃ বাগেরহাটের মোল্লাহাটে নিখোঁজের দীর্ঘ দুই বছর পর হত্যাকারীদের স্বীকারোক্তিতে মাটি খুঁড়ে বস্তাবন্ধী অবস্থায় রানা শরীফ নামের এক যুবকের কঙ্কাল উদ্ধার করেছে মোল্লাহাট থানা পুলিশ। উপজেলার শাসন গ্রামের শরীফ আহম্মেদ ওরফে বাচ্চু শরীফের ছেলে রানা শরীফ নিখোঁজের ঘটনায় পুলিশের অনুসন্ধান, তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তা ও অভিযানে আটক দুই যুবকের স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে ওই গ্রামের একটি বাঁশ বাগান থেকে বৃহস্পতিবার দুপুরে এ কঙ্কাল উদ্ধার হয়।

মোল্লাহাট থানা অফিসার ইনচার্জ সোমেন দাশ জানান, গত ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে রানা শরীফ নিখোঁজ হন। পরবরর্তীতে রানার পিতা মোল্লাহাট থানায় জিডি করেন। বিষয়টি অনুসন্ধানও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় শাসন গ্রামের মোস্তফা চৌধুরী ছেলে মোঃ হোসাইন চৌধুরী, এনামুল ফকিরের ছেলে রুহুল আমিন ফকির , হেদায়েত চৌধুরীর ছেলে শহিদুল চৌধুরী, ইউসুফ চৌধুরীর ছেলে মোঃ নাদিম চৌধুরী এবং আবু মোল্লার ছেলে মোঃ জুয়েল মোল্লা কে গত বুধবার রাতে আটক করা হয়।

ওসি সোমেন দাশ আরো বলেন, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রুহুল আমিন ও শহিদুল জানায়, তারা মোট পাঁচ জনে (নিখোঁজের দিন) একই গ্রামের মিরাজ চৌধুরীর বাড়িতে রানাকে হত্যা ও লাশ বস্তাবন্ধী করে। এরপর ওই এলাকার নির্জন একটি বাঁশ বাগানে বস্তাবন্ধী লাশ পুতে রাখে।
অতঃপর আটক রুহুল আমিন ও শহিদুলকে সঙ্গে নিয়ে তাদের দেখানো স্থানে জনৈক আসাদ শেখের বাঁশ বাগানে মাটি খুঁড়ে বস্তাবন্ধী অবস্থায় রানা শরীফের কঙ্কাল উদ্ধার করা হয় । জঘন্যতম এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

রানা শরীফের পিতা শরীফ আহম্মেদ বাচ্চু শরীফ জানান, আমার ছেলের কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যার পর লাশ গুম করে রাখে খুনিরা। আমি আমার ছেলের খুনিদের ফাঁসি চাই।

স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার শাসন গ্রামের শরীফ আহম্মেদ ওরফে বাচ্চু শরীফের ছেলে রানা শরীফ দীর্ঘ দুই বছর আগে নিখোঁজ হন। ওই ঘটনায় রানার পিতা মোল্লাহাট থানায় জিডি করেন। এরপরও তার কোন সন্ধান না পাওয়ায় ধারণা করা হচ্ছিল যে, রানাকে হয়তো তার বন্ধুরা কিছু করেছে। রানা যাদের সাথে চলাফেরা করতো তারা খারাপ স্বভাবের। অবশেষে পুলিশের প্রচেষ্টায় আজ সেটাই প্রমাণিত হলো।