নীলাকাশ টুডেঃ রাতে ফোনে প্রেমিকের সঙ্গে শলাপরামর্শ করে স্বামীকে বিদ্যুতের শক দিয়ে খুন করে প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়েছিলেন এক গৃহবধু। কয়েক দিন ধরে তাদের খোঁজার পর দু’জনকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ওই গৃহবধু অন্তঃসত্ত্বা বলে জানা যায়। ভারতের উত্তরপ্রদেশের মথুরা জেলায় এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বলদেব থানার বাসিন্দা সুবেদার সিংহের ছেলে মানবেন্দ্রর বিয়ে হয়েছিল কয়েক মাস আগে। তবে ছেলে এবং বাবা একই গ্রামে দু’টি ভিন্ন বাড়িতে থাকতেন। এক রাতে মানবেন্দ্রর স্ত্রী শ্বশুরবাড়িতে ছিলেন। ওই রাতে বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় মানবেন্দ্রর। প্রথমে ছেলের মৃত্যুকে দুর্ঘটনা বলে মনে করেছিলেন সুবেদার। কিন্তু ছেলের বউ বাড়ি ছেড়ে পালানোর পর তাঁর সন্দেহ হলে অস্বাভাবিক মৃত্যুর অভিযোগ করেন থানায়।

 

অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত নেমে চাঞ্চল্যকর তথ্য পায় পুলিশ। উদ্ধার হয় মানবেন্দ্রর মোবাইল ফোন। কল লিস্ট দেখে পুলিশ জানতে পারে মানবেন্দ্রর মৃত্যুর পরও ওই মোবাইলে ধারাবাহিক ভাবে একটি নম্বরে ফোন এসেছে। ওই নম্বরটি জনৈক অতীন্দ্রের। পরে পুলিশ জানতে পারে প্রায় প্রতি দিনই মানবেন্দ্রর স্ত্রী এবং অতীন্দ্রের ফোনে কথা হত। এর পর একটি কল রেকর্ড পায় পুলিশ। সেটি মানবেন্দ্রের মৃত্যুর পরের কথোপকথন। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে পুরুষ কণ্ঠকে বলতে শোনা যায়, তুমি যেমন বলেছিলে, আমি ১০ মিনিট ধরে ইলেকট্রিক শক দিয়েছি ওকে।

ওই কল রেকর্ড পাওয়ার পর মানবেন্দ্রের স্ত্রীর খোঁজ শুরু করে পুলিশ। অতীন্দ্রর সঙ্গেই তাঁকে পাওয়া যায়। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, বিয়ের আগে থেকে অতীন্দ্রর সঙ্গে সম্পর্ক ছিল ওই মহিলার। বিয়ের পরও তাঁদের যোগাযোগ ছিল। দু’জনে শলাপরামর্শ করেই মানবেন্দ্রকে খুন করেছেন। দু’জনেই এখন জেলবন্দি। সূত্র: আনন্দবাজার।