মাসুদুর রহমান, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় এক সঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সালেমা খাতুন নামে এক গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার পর উপজেলার অ্যাপোলো ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কোনো ধরনের অস্ত্রোপচার ছাড়াই ৫ সন্তানের জন্ম দেন তিনি। তবে এর কিছুক্ষণ পরই একে একে ৫ সন্তানই মারা যায়।

সালেমা খাতুন (২৭) চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের কানাইডাঙ্গা গ্রামের ঝন্টু মিয়ার স্ত্রী।

এই বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মামুনুর রশীদ নীলাকাশ টুডেকে বলেন, স্বামীর সঙ্গে ওই প্রসূতি বিকেলে পেট ব্যথা নিয়ে ক্লিনিকে আসেন। ক্লিনিকে আসার পরই প্রথমে একটি সন্তান প্রসব করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসকের সহযোগিতায় বাকি চার সন্তান প্রসব করেন। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই পাঁচ নবজাতকের মৃত্যু হয়।

সালেমার খাতুনের স্বামী ঝন্টু মিয়া নীলাকাশ টুডেকে বলেন, বিকেলে স্ত্রীর পেট ব্যথা হলে ক্লিনিকে নিয়ে আসি। এরপরই একে একে পাঁচটি সন্তান প্রসব করে। কিছুক্ষণের মধ্যেই পাঁচ সন্তানই আল্লাহপাকের ডাকে সাড়া দিয়েছে। বিয়ের ১০ বছর পর সন্তানের মুখ দেখলাম। কিন্তু কেউ বেঁচে রইল না। বর্তমানে আমার স্ত্রী সুস্থ আছেন।

কর্তব্যরত চিকিৎসক মাসুমা ফেরদৌস নীলাকাশ টুডেকে জানিয়েছেন, বাচ্চাদের বয়স সাড়ে ৪ মাস। মূলত জরায়ুর সমস্যার কারণে প্রসব করেন তিনি। একটি মেয়ে, দুটি ছেলে এবং বাকি দুটা এক সঙ্গে জোড়া থাকায় চিহ্নিত করা যায়নি। প্রসৃতি সালেমা খাতুন চিকিৎসাধীন এবং আল্লাহর রহমতে সুস্থ আছেন।