নীলাকাশ টুডেঃ বাংলাদেশের যে মসজিদে নারী-পুরুষ এক জামাতে নামাজ পড়েন
পুরুষ ইমামের পিছনে নারীদের জামাতে নামাজ পড়ার বিধান শরীয়ত সম্মত। কিন্তু আমাদের দেশের কোনো মসজিদে এই ধরণের দৃশ্য চোখে পড়ে না। তবে ব্যতিক্রম এক ঘটনার সাক্ষী নীলফামারীর ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের বাকডোকরা তেলীপাড়া গ্রামের তেলীপাড়া জামে মসজিদ।

ওই মসজিতে একই ইমামের পিছনে জামাতের সাথে নারী পুরুষ মসজিদে এসে নামাজ আদায় করেন। এ নিয়ে ওই গ্রামে বেশ উচ্ছ্বাসও দেখা গেছে। অনেকেই বলছেন, এই ধরনের সুবিধা সব মসজিদে চালু হলে নারী নামাজির সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে।

জানা গেছে, ওই গ্রামে পূর্বের একটি জামে মসজিদ রয়েছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ৫ বছর আগে আলহাজ্ব করিমুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি ১৩শতাংশ জমি মসজিদের নামে দান করেন। সেখানে তেলিপাড়া দ্বি-তলা জামে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়।

মসজিদ নির্মাণের পর গত ৩ বছর ধরে সেখানে নারী পুরুষ একসাথে জামাতে নামাজ আদায় করছেন। দ্বিতল ভবনে মহিলাদের উঠা নামার জন্য মসজিদের পিছন দিয়ে আলাদা শিড়ি করা হয়েছে। মসজিদের নীচ তলায় পুরুষ এবং উপর তলায় নারীদের জামাতের ব্যবস্থা রয়েছে। ৫ ওয়াক্ত নামাজেই নারী-পুরুষের জামাতের ব্যবস্থা রয়েছে।

স্থানীয়রা বলছেন, এই গ্রামে শতাধিক পরিবার রয়েছে। নারী-পুরুষ একসাথে জামাতে নামাজ আদায় করাটা মেয়েদের জন্য বেশ সুবিধার। জুমার দিন নারী নামাজি বেশি আসে।

মসজিদের ইমাম ফারুক হোসেন জানান, অল্প সময় ধরে ইমামতি করছি এখানে। নারী পুরুষের এক সাথে জামাতের সাথে নামাজ আদায় ভালোই লাগে। এধরণের পরিবেশ সর্বত্র সৃষ্টি হলে ভালো হয়।

নারী পুরুষের একত্রে জামাত করে নামাজ পড়ার মসজিদ দেশের অনেক জায়গায় রয়েছে। এভাবে এই গ্রামের মতো প্রতিটি মসজিদে মহিলাদের নামাজের ব্যবস্থা করা গেলে মহিলা নামাজির সংখ্যা আরও বাড়বে। সমাজে বিভেদ দূর হবে বলে মনে করছেন সমাজের বিশিষ্টজনরা।