নীলাকাশ টুডেঃ করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে টালমাটাল সারা বিশ্বের অর্থনীতি। প্রতিটি দেশেই বাড়ছে মূল্যস্ফীতি। এর ঢেউ লেগেছে বাংলাদেশেও। দ্রব্যমূলের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা সাধারণ মানুষ।

সামস্টিক অর্থনীতিতে যে অস্থিরতা চলছে তা সহসাই কাটবে বলে মনে করছেন না বিশেষজ্ঞরা। সংকট উত্তরণে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। এ পরিস্থিতিতে নতুন করে শঙ্কা বাড়াচ্ছে রাজনৈতিক অস্থিরতা। বিএনপির কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে সংঘাত। ঘটছে হতাহতেরও ঘটনাও।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মাঠ দখলের ঘোষণায় রাজপথে আরও ভয়াবহ সংঘাতের আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। তাদের মতে, রাজনৈতিক সংঘাত ছড়িয়ে পড়লে দেশের অর্থনৈতিক সংকট আরও বাড়তে পারে। যা কারও জন্যই মঙ্গল বয়ে আনবে না। তাই দেশের স্বার্থে রাজনৈতিক দলগুলোকে আরও সহনশীল হতে হবে। রাজপথে নয়, আলোচনার মাধ্যমে রাজনৈতিক সংকট উত্তরণের উদ্যোগ নিতে হবে।

জানা গেছে, অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় নানা পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। জ্বালানি সংকট মোকাবিলায় করা হচ্ছে লোডশেডিং। সময় কমানো হয়েছে অফিস-আদালতের। ডলার সংকটে বিলাসী পণ্য আমদানিতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। অতি প্রয়োজনীয় ছাড়া সব পণ্যের এলসি না খোলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এমনকি বেশকিছু উন্নয়ন প্রকল্পে স্থগিত করা হয়েছে অর্থ বরাদ্দ। সরকারের নেওয়া এসব পদক্ষেপের সুফল জনগণ পাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। কারণ, রাজনৈতিক অস্থিরতা এ সংকটের মাত্রাকে বাড়িয়ে দিতে পারে। রাজনৈতিক সংঘাত বাড়লে ব্যাহত হবে উৎপাদন, কমতে পারে কাজের ক্ষেত্রও।

সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, দেশে রাজনীতি বলতে কিছু নেই। চলছে অপরাজনীতি। যার শিকার হচ্ছি আমরা। করোনা মহামারি আমাদের অর্থনীতিকে প্রচণ্ডভাবে ধাক্কা দিয়েছে। তা সামলিয়ে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ।

এ যুদ্ধে পুরো বিশ্বই এখন টালমাটাল। যার প্রভাব পড়েছে আমাদের অর্থনীতিতেও। জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রভাব সবকিছুতে। ডলারের অভাবে অনেক পণ্যই আমদানি করা যাচ্ছে না। এ সংকট নিরসনে সরকার নানা উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিরতায় সেই উদ্যোগ কতটা কার্যকর হবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, কয়েক মাস পরেই শুরু হবে নির্বাচনি বছর। নির্বাচনি বছরে এমনিতেই দেশের অর্থনীতিতে একটা স্থবিরতা তৈরি হয়। বিনিয়োগ, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, রাজস্ব আদায় কমে যেতে পারে। রাজনৈতিক পরিস্থিতি কি হয় সেদিকে সবার নজর থাকে।

তাই এখন থেকে যদি রাজনৈতিক অস্থিরতা ভয়াবহ রূপ নেয় তা সামনের দিনগুলোতে অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে টালমাটাল করে দিতে পারে। তাই এমন কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড যেন না হয় যাতে মানুষেল জীবন-জীবিকা বিঘ্নিত হয়, সম্পত্তি নষ্ট হয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, অর্থনীতি যখন বিপর্যস্ত হয় তখন রাজনীতি বিপন্ন হয়। কারণ রাজনীতিতে সহিংসতা, সংঘর্ষ সবসময় অনিবার্য হয়েছে এ দেশে। কিন্তু অর্থনীতি যদি ভালো থাকে, মানুষের পেট আর পকেট যদি স্বস্তি পায়, তখন রাজনৈতিক সহিংসতা হালে খুব একটা পানি পায় না।

 

অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, আমাদের দেশে অর্থনীতি এমনিতেই সংকটে আছে। রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অর্থনৈতিক সংকট তৈরি হওয়ার কথা নয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, বিরোধী দলের মিছিলে সরকারি দল ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আক্রমণ করছে। এত অসহিষ্ণু হলে তো নানা দিকে সমস্যা হবে। সরকার সব সময় চড়াও না হয়ে একটু সহনশীল হলে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়।